কম্পিউটার জগৎ

ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক সার্ভিসের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত 2.4 GHz, 5 GHz এবং 60 GHz ব্যান্ড এর মধ্যে পার্থক্য কী?

আসসালামু আলাইকুম,

ওয়াই-ফাই প্রযুক্তি প্রধানত তিনটি রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ড ব্যবহার করে। এগুলো হল 2.4GHz, 5GHz এবং 60GHz. যেগুলো বিভিন্ন ডিভাইসের সাথে সংযোগ স্থাপনে ব্যবহৃত হয়। 2.4GHz ব্যান্ড অনেক বেশি পরিসীমা (range) প্রদান করতে পারে, কিন্তু 5GHz ব্যান্ড হাই নেটওয়ার্ক ব্যান্ডউইথ প্রদান করতে পারে। অন্যদিকে, 60GHz অনেক বেশি গতি দিতে পারে কিন্তু এর পরিসীমা (range) কম।

 

আপনার সংযোগকৃত প্রায় প্রতিটি ওয়াই-ফাই-সার্টিফাইড ডিভাইস 2.4GHz ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডের ওয়্যারলেস রাউটার সাথে সংযুক্ত থাকে।  এছাড়া একটি 5GHz -এর হাই ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ড আছে এবং এর জন্য উভয় ডিভাইসকেই ডুয়াল-ব্যান্ড ট্যাগ সাপোর্টেড হতে হয়। গত কয়েক বছর ধরে, ডুয়াল-ব্যান্ড ওয়্যারলেস ডিভাইসের ব্যবহার বেরেছে কারণ এর দাম তুলনামুলক কমেছে।

ওয়াই-ফাই একটি প্রযুক্তি যেটা IEEE organization দ্বারা ডিজাইনকৃত। এর সর্বশেষ রিলিজকৃত সংস্করণ 802.11। পূর্ববর্তী সংস্করণ 802.11a 5GHz রেডিও ব্যান্ড সাপোর্ট করতে সক্ষম। অন্যদিকে, 802.11b এবং 802.11g শুধুমাত্র 2.4 GHz ব্যান্ড সাপোর্ট করে। 5GHz ব্যান্ডের সাপোর্টের জন্য পুনরায় 802.11n -কে রিলিজের সঙ্গে ফিরিয়ে আনা হয় যেটাতে 2.4GHz -ও সাপোর্ট করে।

সুতরাং, ওয়াই-ফাই প্রযুক্তিতে ব্যবহৃত 2.4GHz এবং 5GHz ব্যান্ডের কাজের মধ্যে পার্থক্য কি? আপনারা অনেকে ইতিমধ্যে জানেন যে, বাস্তব পার্থক্য হল এর ডেটা রেট এবং নেটওয়ার্ক পরিসীমা (range)।

স্প্রিড (Speed)

5GHz ব্যান্ড 2.4Ghz ব্যান্ডের তুলনায় অধিক গতিসম্পন্ন নেটওয়ার্কের  সুবিধাযুক্ত কারণ এটাতে বড় সংখ্যার চ্যানেল অন্তর্ভুক্ত করা আছে। মোট হিসেবে, 5GHz ব্যান্ডের মোট ২৩টি চ্যানেল আছে যেখানে 2.4GHz ব্যান্ডের মাত্র ৩টি চ্যানেল আছে। এটা সিঙ্গেল সংযোগের জন্য আরো বেশি MIMO (Multiple Input Multiple Output) স্ট্রিম প্রদান করে।

ওয়াইফাই-এন (WiFi-N) এর ক্ষেত্রে, ডিভাইসকে নেটওয়ার্কে কানেক্ট করার জন্য এই দুটি ব্যান্ড একযোগে কাজ করে। 5GHz ব্যান্ডের 40MHz পর্যন্ত চ্যানেল ব্যান্ডউইডথ আছে। সামঞ্জস্যপূর্ণ ডিভাইস স্বয়ংক্রিয়ভাবে 5GHz ব্যান্ডে সংযুক্ত হয়ে যায় অধিক গতি পাওয়ার জন্য।

শুধুমাত্র ওয়াইফাই-এসি (WiFi-AC)-তে 5GHz ব্যান্ড সাপোর্ট রয়েছে। তবে এটা 80MHz এবং 160MHz হাই চ্যানেলের ব্যান্ডউইড্থ তৈরি করে যেটা ওয়াইফাই-এন (WiFi-N) থেকেও বেশি গতি দেয়। সকল ওয়াইফাই-এসি (WiFi-AC) ডিভাইসও আগের ওয়াই-ফাই-র সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ (কিন্তু কম) [interoperability অর্জনের জন্য।]

পরিসর (Range)

আপনি হয়তো জানেন যে, রাউটারের সাথে সংযুক্ত অ্যান্টেনা, বেতার তরঙ্গ নির্গত করে গোলাকৃতি প্যাটার্নে। (কিছু রাউটারে এটা ভেতরে থাকে।) আর পরিসর বা range হল সর্বোচ্চ ও দুরত্ব যে পর্যন্ত ঐ রাউটার কভার করতে পারে। এবং সেই রেডিও তরঙ্গ অ্যান্টেনার মাঝ থেকে নির্গত হয়।

5GHz ব্যান্ড দ্রুততর হতে পারে কিন্তু এর পরিসীমা অনান্যর পরিপ্রেক্ষিতে পিছিয়ে। এর কারণে হল হাই ফ্রিকোয়েন্সির রেডিও তরঙ্গ দেয়াল এবং অন্যান্য পুরু বস্তুর মধ্য দিয়ে পাস করতে পারে না। আর এসব তো সাধারণত আমাদের ঘরবাড়ি এবং অফিস মধ্যে রাখা আছে।

আমরা যদি বসা-বাড়ির কথা বলি, যেখানে একটা ওয়াইফাই-জি (WiFi-G) রাউটার এর গড় পরিসীমা (Range) প্রায় 70m (মিটার) সেখানে ওয়াইফাই-এসি (WiFi-AC) রাউটারের ক্ষেত্রে মাত্র 35m (মিটার)।

WiFi-AD (60GHz)

WiFi-AD আসার পর থেকে (IEEE 802.11), [যা সাধারণভাবে WiGig নামে পরিচিত], ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে 60GHz ব্যান্ড ব্যবহার শুরু হয়। এই ফ্রিকোয়েন্সিতে, সামঞ্জস্যপূর্ণ wireless ডিভাইস 8Gbps পর্যন্ত স্প্রিড অর্জন করতে পারে এবং এর গড় পরিসীমাও 60m (মিটার)।

5GHz এবং 60GHz-র মত হাই রেডিও ব্যান্ডের একটা বাড়তি সুবিধা আছে, সেটা হল তারা একই স্থানের অন্যান্য নেটওয়ার্কের কাছে হস্তক্ষেপ করতে কম আসক্ত। উদাহরণস্বরূপ, ব্লুটুথ প্রযুক্তিও 2.4 গিগাহার্টজ রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ড ব্যবহার করে। এছাড়াও, ওয়াকি-টকি (walkie-talkie) ডিভাইস 2.4GHz ব্যান্ডের উপর কাজ করে।

একটা সাধারণ সমাধান

আধুনিক রাউটার গুলো একটি সমন্বয় বাস্তবায়ন করেছে যেটা পরিসীমা (range) ঠিক রেখে গিগাবিট অর্ডারের উপরে গতি পেতে সাহায্য করবে। CES ২০১৭-তে এইরকম ডুয়াল ব্যান্ড রাউটার ’Linksys WRT32X’ প্রদর্শিত হয়েছিল যা অনলাইন গেমিং-এর সময় Killer engine toprevent lags ব্যবহার করে। তাই সব কিছু বিবেচনায় এটা ক্যবহার করা যেতে পারে।

 

***এই ধরনের আরও টিপস-ট্রিকস, অফার এবং শিক্ষামূলক পোস্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন***

আপনি কোন রাউটার ব্যবহার করবেন, ডুয়াল ব্যান্ড না ট্রাই-ব্যান্ড ? কমেন্ট বক্সে আপনার মতামত দিন।

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ

You must be logged in to post a comment Login

নতুন পোস্ট’সমূহ

To Top