যৌন টিপস

শারীরিক ব্যায়াম নারীদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়

আপনিও হতে পারেন স্তন ক্যান্সারের শিকার। অবাক হওয়ার কিছু নেই। স্তন ক্যান্সার একবার আক্রমণ করলে রক্ষা পাওয়া কঠিন। তাই, এই রোগ চিহ্নিত করা এবং সে অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া জরুরী। আজ স্তন ক্যান্সারের ঘরোয়া চিকিৎসা সম্পর্কে জানবো।

কারা স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিতে আছে?

আপনি স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারেন কিনা তা নির্ভর করে আপনার বয়স, জীবনযাত্রা এবং বিবাহিত জীবনের উপর। সাধারণত নিম্নে বর্ণিত শ্রেণীর ব্যক্তি স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকতে পারেঃ

১। বেশি বয়সের ব্যক্তি

২। অপেক্ষাকৃত বেশি বয়সে প্রথম সন্তান ধারণ করা

৩। পরিবারের কেউ স্তন ক্যান্সার দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকলে

৪। পূর্বে রেডিয়েশনের মাধ্যমে স্তনের চিকিৎসা করিয়ে থাকলে

৫। মাদকদ্রব্য সেবন করলে

৬। প্রোজেস্টেরন বা এস্ট্রোজেন হরমোন গ্রহণ করলে

কীভাবে বুঝবেন আপনার স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভবনা আছে?

স্তন ক্যান্সার কিছু নির্দিষ্ট লক্ষণ নিয়ে আক্রমণ করে। যেমনঃ

১। স্তনের আশেপাশে বা বগলের নিচে মাংসপিণ্ড দেখা দেয়া

২। স্তনে অতিরিক্ত ডিসচার্জ হওয়া

৩। স্তনের বোঁটা বিকৃত হয়ে যাওয়া

৪। স্তনের অস্বাভাবিক পরিবর্তন আসা; যেমন অতিরিক্ত খসখসে হয়ে যাওয়া, অসম আকৃতি, ফুলে ওঠা অথবা আকারে ছোট হয়ে আসা

৫। শরীরের অন্যান্য অংশে স্তন থেকে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়া

৬। স্তনে চাপ প্রয়োগ করলে ব্যথা না পেলে

শারীরিক ব্যায়াম নারীদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়স্তন ক্যান্সার থেকে দূরে থাকার কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা:

১। রসুনের অ্যান্টিবায়োটিক উপাদান বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকের আক্রমণ থেকে মানবদেহকে রক্ষা করে। রসুন ক্যান্সার প্রতিরোধক উপাদানে ভরপুর। ক্যান্সারাস কোষ ধ্বংস করার জন্য বিশেষ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টি করতে সাহায্য করে রসুন। স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে রান্নায়, গুড়া করে বা তেল আকারে না গ্রহণ করে কাঁচা রসুন খাওয়া উপকারী।

২। ব্রকলিতে লাইনাম্যরেজ জিন নামক উপাদান থাকে। এটা যখন ক্যান্সার কোষে প্রবেশ করে তখন তা সায়ানাইডে রুপান্তরিত হয়ে ক্যান্সারাস কোষকে ধ্বংস করতে সহায়তা করে। তাই ব্রকলি স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে

৩। আঙ্গুর মানবদেহে এস্ট্রোজেন উৎপাদন হ্রাস করে স্তন ক্যান্সার হওয়ার প্রবণতা কমিয়ে নিয়ে আসে।

৪। এক গ্লাস পানিতে কিছু গ্রিন টি দিয়ে ফুটাতে থাকুন। পানি অর্ধেকে চলে আসলে পান করুন। এই চা-এর অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৫। স্তন ক্যান্সার থেকে দূরে থাকতে ভিটামিন ডি কার্যকর ভূমিকা পালন করে। দুধ, ডিম ও কড লিভার অয়েলে প্রচুর ভিটামিন ডি পাওয়া যায়।

৬। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে।

৭। লো ক্যালরি যুক্ত খাবার খেতে হবে।

৮। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, অলিভ অয়েলে উপস্থিত হাইড্রক্সিটাইরোসল স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে।

***এই ধরনের আরও টিপস-ট্রিকস, অফার এবং শিক্ষামূলক পোস্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন***

উপরে বর্ণিত ঘরোয়া টিপসগুলো অনুসরণ করার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নেবেন। শারীরিক বিভিন্ন সমস্যার কারণে এগুলোর মধ্যে অনেক কিছুই নিষিদ্ধ থাকতে পারে। সে ক্ষেত্রে আগে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নেয়া ভাল।

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ

নতুন পোস্ট’সমূহ

To Top