স্বাস্থ্য কথা

পটকা মাছ খেয়ে মানুষের মৃত্যু হয় কেন?

পটকা মাছ বাংলাদেশের নদীতে সচরাচর পাওয়া যায়। এর সামুদ্রিক জ্ঞাতির নাম বেলুন মাছ। পটকা মাছের ৪টি বৈজ্ঞানিক নাম আছে যথা টেট্রোডন প্যাটোকা, শেলোনোডন প্যাটোকা , টেট্রোডন ডিসুটিডেনস্‌, এবং টেট্রোডন কাপ্পা। স্বগোত্রীয় টেপা মাছের বৈজ্ঞানিক নাম টেট্রাডন কুটকুটিয়া। এতিহাসিকভাবে এটাকে গাঙ্গেয় জলজ প্রাণী হিসাবেই বর্ণনা করা হয়।

পটকা মাছ খেলে কি হয়

পটকা মাছ খেয়ে মানুষের মৃত্যু হয় কেন? এ প্রশ্ন আজ সাধারণ মানুষের মনে। মাছতো মা্ছই তাহলে মৃত্যু কেন। এই সব প্ররশ্নর জবাবে মৎস্য গবেষকরা বলেছেন মাছ অর্থে ‘পটকা মাছ’ আসলে মাছ নয় একটি বিষাক্ত জলজ প্রাণী।
বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ এ বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, পটকা মাছে ‘নিউরোটক্সিন’ জাতীয় বিষ থাকে, যার কোন এন্টিডোর নেই। এই মাছ খাওয়ার ফলে মানবদেহে বিষ প্রবেশ করে। এই বিষ খুব সহজে মানবদেহের নার্ভাস সিস্টেম ও হৃদপিন্ড নিষ্ক্রিয় করে ফেলে, যে কারণে মানুষ মৃত্যুবরণ করে।

***এই ধরনের আরও টিপস-ট্রিকস, অফার এবং শিক্ষামূলক পোস্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন***

বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের স্থান, কাল, সময়, প্রজাতি ভেদেও এই মাছ বিষাক্ত নাও হতে পারে। পটকা মাছের সবচেয়ে বিপজ্জনক অংশ হলো এর লিভার। মাছটির লিভারে যে বিষ রয়েছে তা প্রাণঘাতী পটাসিয়াম সায়ানাইডের তুলনায় এক হাজার গুণ বিষাক্ত। আর এ কারণে মাছটির লিভারের সামান্য অংশও যদি মাছটিতে থেকে যায় তাহলে তা বিষাক্ত হয়ে পড়ে এবং মানুষ মারা যায়।

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ

You must be logged in to post a comment Login

নতুন পোস্ট’সমূহ

To Top