স্বাস্থ্য কথা

শরীরের এই অংশগুলিতে সানস্ক্রিন লাগাতে কখনও ভুলবেন না

গরমের সময় ত্বককে সুন্দর রাখাটা বাস্তবিকই একটা কঠিন কাজ। পরিবেশ দূষণের সঙ্গে হাত মিলিয়ে এই সময় সূর্যালোক নানাভাবে স্কিনের ক্ষতি করার চেষ্টা চালায়। তাই তো বছরের এই একটা সময়ে ত্বককে নিয়ে অতিরিক্ত সাবধান হওয়াটা জরুরি। না হলে কিন্তু চোখের সামনেই আপনার সৌন্দর্য কমতে থাকলেও কিছু করার থাকবে না।

তাহলে উপায়? সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মির ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে বাঁচাতে পুরো গরমকালটা জুড়ে সানস্কিন ব্যবহার জরুরি। প্রসঙ্গত, একাধিক গবেষণয়া একথা প্রমাণিত হয়েছে যে, অতিরিক্ত মাত্রায় ত্বক যদি অতি বেগুনি রশ্মির সংস্পর্শে আসে, তাহেল ত্বকের ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। আর এই ধরনের মারণ রোগের হাত থেকে বাঁচতে সানস্ক্রিনের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। কিন্তু সমস্যাটা অন্য জায়গায়। অনেকেই শুধু মুখে সানস্ক্রিন ব্যবহার করেন। তাতে মুখটা বেঁচে গেলেও শরীরের বাকি অংশ সৌন্দর্য হারাতে শুরু করে। তাই তো এই প্রবন্ধে শরীরের সেই সব অংশ সম্পর্কে আলোচনা করা হল, যেখানে সানস্কিন লাগানো মাস্ট!

১. ঠোঁট:
একদম ঠিক শুনেছেন। মুখের পাশপাশি ঠোঁটের উপরেও সূর্য়ের অতিবেগুনি রশ্মির খুব খারাপ প্রভাব পরে। তাই তো শরীরের এই অংশেও সানস্ক্রিন লাগানো দরকার। আর যদি সানস্ক্রিন লাগাতে মন না চায়, তাহলে এস পি এফ রয়েছে এমন লিপ বামও লাগাতে পারেন। একই উপকার পাবেন। প্রসঙ্গত, এই সাবধানতা অবলম্বন না করলে ঠোঁট ফেটে যাওয়ার পাশপাশি এর সৌন্দর্যও হ্রাস পাবে।

২. কান:
শরীরের এই অংশেও সানস্ক্রিন লাগাতে কখনও ভুলবেন না। কারণ শরীরের যেখানে যেখানে সূর্যের আলো এস পরে, সেখানে সেখানেই স্কিন ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই কানকেও বাদ দিলে চলবে না। যখন মুখে সানস্ক্রিন লাগাবেন তখন অল্প করে কানেও লাগিয়ে নেবেন।

৩. কাঁধ:
আরে এই অংশটা তো জামার ভিতরে থাকে তাহলে কাঁধে সানস্ক্রিন লাগানোর প্রয়োজন কী! আসলে সূর্যের আলো এতটাই জোরালো হয় যে জামা ভেদ করে ত্বকের এই অংশেও মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। তাই তো কাঁধকেও সানস্কিনের ব্যবহার থেকে দূরে রাখলে চলবে না। প্রসঙ্গত, সূর্যের আলো আপনার শরীরের যে যে জায়গায় আগে পরে। সেখানে সেখানে সানস্কিন লাগানো মাস্ট!

৪. পায়ের পাতায়:
আপনাদের মধ্যে কতজন বাড়ি থেকে বেরনোর আগে পায়ের পাতাতে সান স্কিন লাগান? সংখ্যাটা যে খুব কম, তা বলে দিতে হবে না নিশ্চয়! এক্ষেত্রে জেনে রাখা উচিত যে, পায়ের পাতা ঢাকা জুতো না পরলে সব সময় শরীরের এই অংশে সানস্ক্রিন লাগানো জরুরি। কারণ যেমনটা আগেও বলেছি, আমাদের শরীরের যেখানে যেখানে সূর্যের আলো পরে, সেই সব জায়গায়া অতি বেগুনি রশ্মির খারাপ প্রভাব পরার আশঙ্কা থাকে।

৫. চোখের পাতায়:
একেবারে ঠিক শুনেছেন। এখানেও সানস্কিন লাগাতে হবে। কারণ শরীরের বাকি অনেক জায়গার মতো এই অংশেও সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মির প্রভাব সমানভাবে পরে। প্রসঙ্গত, একাধিক কেস স্টাডি করে দেখা গেছে শরীরের বিভিন্ন জায়গার তুলনায় চোখের পাতাতে ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা সবথেকে বেশি থাকে। তাই তো এই অংশেও সানস্কিন লাগাতে কখনও ভুলবেন না যেন!

৬. স্কাল্পে:
শরীরের এই অংশেও আমরা অনেকেই সানস্কিন লাগাতে ভুলে যাই, যা একেবারেই করা উচিত নয়। কারণ সূর্যালোক সবথেকে বেশি পরিমাণে মাথাতেই পরে। তাই তো অতি বেগুনি রশ্মির হাত থেকে স্কাল্প এবং চুলকে বাঁচাতে সানস্কিন ব্যবহার মাস্ট! আর যদি এমনটা না করেন, তাহলে স্কাল্পে প্রদাহ দেখা দেয়, যা থেকে আরও নানারকমের রোগ হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। তবে চুরান্ত গরমের সময় শুধু সানস্কিন লাগালে চলবে না। সেই সঙ্গে টুপিও ব্যবহার করতে হবে। আর যদি টুপি পড়তে ইচ্ছা না করে তাহলে সুতির কাপড় দিয়ে মাথা ঢেকে রাখতে হবে। এমনটা করলে চুল এবং স্কালের ক্ষতি কম হবে।

***এই ধরনের আরও টিপস-ট্রিকস, অফার এবং শিক্ষামূলক পোস্ট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন***

৭. কুনুইয়ে:
মাত্রতিরিক্ত ঘর্ষণের কারণে এমনিতেই কুনুইয়ে চোট আঘাত বেশি লাগে। তার উপর যদি গরমের সময় সানস্কিন না লাগান তাহলে ক্ষতির আশঙ্কা আরও বেড়ে যায়। তাই এবার থেকে বাড়ি থেকে বেরনোর আগে পরিমাণ মতে সানস্কিন নিয়ে ভাল করে শরীরের এই অংশে লাগিয়ে নেবেন। এমনটা করল দেখবেন কুনুই কালো হয়ে গিয়ে আপনার সৌন্দর্য আর খারাপ করবে না।

You must be logged in to post a comment Login

নতুন পোস্ট’সমূহ

To Top